- বিজ্ঞাপন -
হোম আপনার পৃষ্ঠা ঐক্য বাংলা ট্রেড লাইসেন্স ছাড়াই অবৈধ ব্যবসা, ফ্ল্যাটের কমন স্পেস আটকানোর প্রতিবাদে মহিলাকে কটুক্তি।

ট্রেড লাইসেন্স ছাড়াই অবৈধ ব্যবসা, ফ্ল্যাটের কমন স্পেস আটকানোর প্রতিবাদে মহিলাকে কটুক্তি।

বাংলার বুকে বহিরাগতদের দৌরাত্ম্য দিন দিন বাড়ছে। সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল দক্ষিণ কলকাতার বুকে একটি আবাসনে যেখানে একজন অবাঙালী হিন্দিভাষী ব্যক্তি অবৈধভাবে ব্যবসা করছেন। কমন স্পেসে মালপত্র ছড়িয়ে রাখা, স্কুটার পার্কিং করে যাতায়াতের পথ আটকানো ইত্যাদি ঘটনার প্রতিবাদ করায় ওই আবাসনেরই একজন বাঙালি মহিলাকে হুমকি দেওয়া হল।

0
298
- বিজ্ঞাপন -

বাংলার বুকে বহিরাগতদের দৌরাত্ম্য দিন দিন বাড়ছে। সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল দক্ষিণ কলকাতার বুকে একটি আবাসনে যেখানে একজন অবাঙালী হিন্দিভাষী ব্যক্তি অবৈধভাবে ব্যবসা করছেন। কমন স্পেসে মালপত্র ছড়িয়ে রাখা, স্কুটার পার্কিং করে যাতায়াতের পথ আটকানো ইত্যাদি ঘটনার প্রতিবাদ করায় ওই আবাসনেরই একজন বাঙালি মহিলাকে হুমকি দেওয়া হল।

- বিজ্ঞাপন -

ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় ঐক্যযোদ্ধারা এবং এই লড়াইতে ঐক্য বাংলা সর্বশক্তি দিয়ে সেই বাঙালি বোনের সাথে থাকবে এমনই প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সংগঠনের সাধারন সম্পাদিকা শ্রীমতি সুলগ্না দাশগুপ্ত। সোশ্যাল মিডিয়ায় ওই মহিলার ভিডিও পোস্ট থেকে জানতে পেয়ে ঘটনাস্থলে পোঁছে যান দেবায়ন সিংহ। মহিলার সসাথে কথা বলে নিজে চোখে সমস্ত কিছু দেখার পর যোগাযোগ করেন স্থানীয় কাউন্সিলরের সাথে। স্থানীয় কাউন্সিলর সব রকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান শ্রী সিংহ।

দক্ষিণ কলকাতার ঢাকুরিয়া অঞ্চলের এক আবাসনে অশোকলাল আগরওয়াল নামক একজন অবাঙালী হিন্দিভাষী ব্যক্তি ওই ফ্ল্যাট বাড়ির ভিতরে কমন স্পেসে জিনিসপত্র রেখে গ্যারেজ হিসেবে ব্যবহার করছিলেন এবং বৈধ কাগজপ্ত্র ছাড়াই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। মহিলা জানান – “বেশিরভাগ প্রতিবেশীই বাঙালি কিন্তু তারা কলকাতার বাইরে থাকেন। এই সুযোগে অবৈধ ব্যবসা শুরু করেন ওই অবাঙালি ভদ্রলোক।” তিনি আরো বলেন যে, “সবসময় খারাপ ব্যবহার করেন শ্রী আগরওয়াল, জিনিসপত্র সরাবার কথা এবং উনার অবৈধ ব্যবসার বললে আমায় হুমকি দেওয়া হয়।” এছাড়াও তিনি সবসময় তীব্র বাঙালি বিদ্বেষমূলক মন্তব্য করে থাকেন বলে মহিলার অভিযোগ।

ঐক্য বাংলা সংগঠনের সাধারণ সম্পাদিকা শ্রীমতী সুলগ্না দাশগুপ্তর বক্তব্য অনুসারে পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া ভারতের কোন রাজ্যে ভিন রাজ্য থেকে কেউ এসে, সেখানে ফ্ল্যাট কিনে বা ভাড়া নিয়ে, স্থানীয় প্রতিবেশীদের সাথে এই ব্যবহার করছে এটা ভাবাই যায়না। বাঙালি নিজের স্বার্থের কথা না ভেবে, অতিথিকে সর্বোচ্চ সম্মান এবং সমাদর দেওয়ার শিক্ষাই পেয়ে এসেছে। কিন্তু বাঙালির পিঠ আজ দেওয়ালে ঠেকে গিয়েছে। এবারে ঘুরে দাঁড়াতেই হবে। ভারতের বাকি সমস্ত রাজ্যের মতো বাংলাতেও যাতে করে ভূমিসন্তানেরা অগ্ৰাধিকার একদিন প্রতিষ্ঠিত হয় ঐক্য বাংলা সেটা সুনিশ্চিত করবে ঐক্য বাংলা।”

যেভাবে ওনাদের যোগাযোগ করা মাত্র ওনারা পাশে এসে দাঁড়ান, সমস্ত কিছু শোনেন এবং মাত্র একদিনের মধ্যে ঘটনাস্থলে এসে প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ থেকে শুরু করে যথাসম্ভব সাহায্য করেন, তাতে অভিভূত অভিযোগকারিনি। তিনি চান যেন ঐক্য বাংলা এভাবেই প্রতিটি বাঙালির পাশে থাকুক। শুধু তাই নয়, এই ঘটনাগুলো যথাসম্ভব প্রচার করে বাঙালি সমাজের মধ্যে সচেতনতা জাগিয়ে তুলুক, যাতে তার মত আর কোন বাঙালিকে দিনের পর দিন এভাবে অপমান হুমকি লাঞ্ছনা সহ্য করতে না হয়।”

বাংলার বুকে হোক বা বাংলার বাইরে, বাঙ্গালির উপর অবাঙ্গালির অত্যাচারের প্রতিবাদ করতে, বাঙালি জাতিকে একজোট হতে, বাঙ্গালির অধিকারের দাবীতে যেভাবে ঐক্য বাংলা রুখে দাঁড়াচ্ছে তা সত্যিই প্রশংসনীয়। আশা করা যায় আগামী দিনে এই সংগঠন সহ বৃহত্তর বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলন সত্যিই বাংলা তথা ভারতে বাঙালির ন্যায্য অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা করবে।

- বিজ্ঞাপন -

কোন মন্তব্য নেই