বুদ্ধদেব দাশগুপ্তর ই-শুভেচ্ছা আর মাধবী মুখোপাধ্যায়ের আশীর্বাদ সহকারে মুক্তি পেল বাইলেন – রইল ভিডিও লিঙ্ক
- বিজ্ঞাপন -

সম্পর্ক কখন পুরোনো হয়? যখন সেখানে লুকোচুরি দানা বাঁধে তখন? নাকি সম্পর্ক পুরোনো হয় বলেই তখন সেখানে লুকোচুরি আসে? যখন সম্পর্কের সব জানালা বন্ধ হয়ে যায়, বেঁধে রাখার চেষ্টা করা হয় ভালোবাসাকে, অমনি জট পেকে যায় সম্পর্ক। লুকোচুরি শুরু হয়, নিস্তেজ হওয়া শুরু হয় ভালোবাসা। দীর্ঘ কয়েক বছরের চেনা মানুষও এক মুহূর্তের মধ্যে হয়ে উঠতে পারেন সম্পুর্ন অচেনা। মান – সম্মান, লোক – লৌকিকতার কথা মাথায় রেখে মনের ইচ্ছার বিরুদ্ধে লড়াই করে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার আপ্রাণ চেষ্টা নিয়েই সামাজিক বার্তার স্বল্প দৈর্ঘ্যের এই ছবি “বাইলেন” আনুষ্ঠানিক ভাবে মুক্তি পেল কোলকাতার পিয়ারলেস ইন থেকে।

আরো পরুনঃ আন্তর্জাতিক নারী দিবসে আমরি হাসপাতাল ও বাঙালি বৈদ্য সমাজ সম্মানিত করল সমাজের বিভিন্ন কৃতি মহিলাদের

- বিজ্ঞাপন -

এর আগেও এমন বেশ কিছু স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছায়াছবিতে সমাজের বিভিন্ন মাধ্যমকে সামাজিক বার্তা দিয়েছেন মফঃস্বলের এই অভিনেত্রী তথা পরিচালিকা এবং জিতে নিয়েছেন “বেস্ট ওমেন শর্ট ফিল্ম – মডেল এন মুভি শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল ২১”; “কাল্ট ক্রিটিক্ট মুভি এওয়ার্ড – ২০”; “১০ম দাদা সাহেব ফালকে ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল – ২০”; “টেগোর ইন্ট্যারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল – ২০”; “লন্ডন এক্স৪ সিজন্যাল শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল – অটম ২০”; “টিফ” এর মতো জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পুরস্কার।

আরো পরুনঃ ভোটের দামামা আর কোভিড কে মাত করেই উদ্বোধন গড়িয়াহাট সঙ্গীত মেলা – আহারে বাহারে

বিখ্যাত চিত্র পরিচালক শ্রী বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত মহাশয় একটি ই-বার্তার মাধ্যমে প্রাণভরে আশীর্বাদ ও শুভেচ্ছা জানান দীপান্বিতা সেনগুপ্তকে এবং পরবর্তীতে বাইলেন ছবিটি দেখার ইচ্ছাও প্রকাশ করে সকল রকম সাহায্যের আশ্বাস দেন। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের “ঘর-সংসার” এর উদাহরণ দিয়ে প্রখ্যাত অভিনেত্রী শ্রীমতি মাধবী মুখোপাধ্যায় বলেন কর্ম করে যাও, ফলের আশা কোরো না, থেমে থেকো না। সমাজকে এভাবেই বার্তা দিতে থাকো। দর্শকদের উদ্দেশ্যেও মাধবী দেবী অনুরোধ জানান ছবিটি দেখার। বিখ্যাত সঙ্গীত পরিচালক পিলু ভট্টাচার্য্য একটি সরচিত গানের মাধ্যমে দীপান্বিতা সেনগুপ্তর কাজের ভূয়সী প্রশংশা করে আগামীতে তার পাশে থাকার প্রতিশ্রুতির কথা জানান। পণ্ডিত মল্লার ঘোষ, ইন্দ্রাণী গাঙ্গুলী, তন্ময় চক্রবর্তী, শ্রী সেনগুপ্ত, মল্লিকা ঘোষেরাও সাধুবাদ জানান এবং “বাইলেন” থেকে “রাজপথে”র রাস্তা হোক, এই শুভকামনা জানান দীপান্বিতা সেনগুপ্ত ও সমগ্র ইউনিট কে।

আরো পরুনঃ  বাণিজ্যনগরী কলকাতার স্রষ্টা কি বাঙালি তন্তুবণিক শেঠ-বসাক পরিবার? ডাঃ তমাল দাশগুপ্ত

আরো পরুনঃ ১৮,৩৪,১৮৫ টাকার মাছের বকেয়া না মিটিয়ে উল্টে পাওনাদারদের নামেই কিডন্যাপিং এর অভিযোগ। কোটী টাকা তছরুপীতে অভিযুক্ত কেয়া ও #শেষ_অনির্বাণ

আরেকটি শুটিং এর কাজে ব্যস্ত থাকায় অভিনেতা রাজদীপ সরকার এদিন উপস্থিত না থাকতে পারলেও উপস্থিত ছিলেন জনপ্রিয় লেখক নিজামুদ্দীন কাজী এবং অন্যরা। অভিনেত্রী, পরিচালিকা, প্লে ব্যাক সিঙ্গার তথা স্ক্রিপ্ট রাইটার দীপান্বিতা সেনগুপ্ত এদিন জানান যে তিনি তার ক্ষুদ্র প্রয়াসে চেষ্টা করে যান সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষকে সামাজিক বার্তা প্রেরণ করে সমাজের সামগ্রিক বিকাশ ঘটাতে। আর যার কারণেই বিভিন্ন সামাজিক বার্তা নিয়ে তৈরী করেন স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবিগুলি। এর সাথে সাথে “চারুলতা”, “লাবণ্য” আর “কাদম্বরী”র মতো বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান চালান দীপান্বিতা দেবী এবং সেই কাজে সম্পূর্ণ সহযোগিতা পান তার স্বামী অনুরণ বাবুর।

আরো পরুনঃ বিধবা মহিলার সাথে প্রতারণা ৪০ লাখেরও বেশী, মাণষিক যন্ত্রণা দিয়ে খুন করার চেষ্টা মামা – ভাগ্নীর ভুয়ো পরিচয়ে – স্বপরিবারে প্রতারণার ব্যাবসা

দীপান্বিতা সেনগুপ্তর অনান্য স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবি / মিউজিক ভিডিওগুলির মধ্যে অন্যতম “আজ সারাদিন”, “নিয়মভঙ্গ”, “উতলধারা”, “অবিশ্বাসী মেঘ” ইত্যাদী বহুল জনপ্রিয় এবং একাধিক পুরস্কার প্রাপ্ত।

আরো পরুনঃ ৬ দশকের অভিনয় জীবনের সমাপ্তি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের- পরিবারকে ছেড়ে গেলেন ? এর মুখে (?)

Standee.jpg

নতুন বৈবাহিক জীবন শুরু করতে চলেছে প্রেমিক প্রেমিকা। স্টার হোটেলে বিশাল তোড়জোড় করে আংটি বদল হল। দুজনের ৫-৬ বছরের সম্পর্ক। একে অপরের প্রতিটা না বলা কথার মানে জানে। শরীরগুলোও ভীষণ মুখস্ত। সম্পর্ক হারাবার কথা মাথায় আসেনা কারোর। নীরা শান্ত, অমিত অস্থির, চৌখস। নীরা হবু শ্বশুড়ের বড়ই স্নেহের। সমাজের পরিচিত শ্লোগান, বিয়ে হলেই ঔ এক বৌ নিয়েই সন্তুষ্ট হতে হবে প্রেমিককে। অন্য মেয়ের কথা ভাবা তো দুর, তাকানোই যাবেনা। এরকম কিছু বদ্ধমুল ধারনা নিয়েই আমার গল্প “বাইলেন” – দীপান্বিতা সেনগুপ্ত।

আরো পরুনঃ  ১০০ বছর আগে শুরু হয়েছিল স্বদেশী 'মার্গো' সাবানের জয়যাত্রা , নেপথ্যে ছিলেন একজন বাঙালি : খগেন্দ্র চন্দ্র দাস - ঐক্য বাংলা

আরো পরুনঃ “লিঙ্গ সাম্যে বিশ্বাসী বলেই আমি নারীবাদ বিরোধী”- ঐক্য বাংলার নেত্রী সুলগ্না দাশগুপ্ত

যে আপনাকে সুরক্ষা দিলেও হঠাৎ হঠাৎ আপনাকে বিপদে ফেলে তাকে দূরে রাখাই ভালো। যে আপনার যত্ন নেবে ভেবে আপনি যত্নে রাখছেন কিন্তু স্বভাব বশতঃ আপনাকে লজ্জিত ও বিপদগ্রস্ত করছে, তাকে ত্যাগ করে সাবলম্বী হয়ে ওঠাই শ্রেয়। আর তাই “বাইলেন”। সমাজ – সংস্কৃতি, লোক – লৌকিকতা র কথা মাথায় রেখে দীর্ঘ কয়েক বছরের পরিচিত রাস্তার বদলে নীরা কেন বেছে নিল “বাইলেন”? রইল ভিডিও।।

- বিজ্ঞাপন -