Feluda_Alt_Bangla
ফেলুদা
- বিজ্ঞাপন -

‘আমি অভিনয় করছি বলেই তো সুস্থ আছি।’ তাই তো করোনা সতর্কাতার মাঝেও লাইট-ক্যামেরা-অ্যাকশন থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখেননি। একটু খোঁজ নিলে দেখা যাবে এটা তাঁর স্বতন্ত্র উক্তি হলেও আসল কারণ ছিল তাঁর পরিবার।

আরো পড়ুনঃ এক্সরের রেট ২৫০/- হলেও মোট খরচ ৭৫০/- ব্যবহৃত পিপিই কিটের নামে অবাধ লুট গড়িয়ায়

- বিজ্ঞাপন -

স্ত্রী দীপা চট্টোপাধ্যায় বিছানায় শয্যাশায়ী বেশ কিছু সময় ধরেই। একমাত্র পুত্র সৌগত বর্তমানে কর্মহীন। একমাত্র কন্যা পৌলমী বসু দীর্ঘদীন ধরেই বনিজের ছেলের সাথে বাবার আশ্রয়ে। আর সম্ভবত সেই গুরুদ্বায়ীত্ত্ব বহন করতেই ৮৫ বছর বয়সেও “লাইট – ক্যামেরা – একশন”।

আরো পড়ুনঃ বাঙালি জাতীয়তাবাদ শুধু আবেগ নয়, বাঁচার লড়াই – সুলগ্না দাশগুপ্ত

বেশ কিছুদিন ধরেই নিজের শরীরও ভালো যাচ্ছিল না। কিন্তু সেদিকে খেয়াল করার উপায় ছিল না টলিউডের এই সুপার ডুপার হিট অভিনেতার। ৬১ বছরের কেরিয়ারেশুধু সত্যজিৎ রায় নন, তপন সিনহা, মৃণাল সেন, অজয় কর, তরুণ মজুমদার থেকে শুরু করে শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়-নন্দিতা রায়, সৃজিত মুখোপাধ্যায়, অতনু ঘোষ, সুমন ঘোষের মতো আজকের প্রজন্মের পরিচালকদের ছবিতে অভিনয় করেছেন প্রায় ৩০০ টির ও বেশি ছায়াছবিতে।

আরো পড়ুনঃ বাঙালি জাতির উদ্দেশ্যে নিকৃষ্টতর উক্তি বিজেপির সদস্য তথা ত্রিপুরা ও মেঘালয়ের প্রাক্তন রাজ্যপাল তথাগত রায়ের

পাশাপাশি মঞ্চাভিনয়, নাট্য পরিচালনা ও নাট্য রচনাতেও দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে সফল নাট্যাচার্য শিশির কুমার ভাদুড়ির অনুসারী এই অভিনেতা। মহানায়ক উত্তম কুমারের সমসাময়িক সময়েও বাঙালি মনের চিলেকোঠায় নিজের স্থান করে নিতে সক্ষম এই অভিনেতা অবশেষে হার মানলেন কোভিড ১৯ এর কাছে।

আরো পড়ুনঃ “লিঙ্গ সাম্যে বিশ্বাসী বলেই আমি নারীবাদ বিরোধী”- ঐক্য বাংলার নেত্রী সুলগ্না দাশগুপ্ত

২০২০ র ১৫ই নভেম্বর জীবনযুদ্ধে হার মানতে বাধ্য হলেন টালিগঞ্জের মহীরুহ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। দীর্ঘ্ ৪০ দিনের লড়াই হেরে গেলেন ফেলুদা। লডকাউন পরবর্তী সময়ে শেষ করেছেন নিজের বায়োপিক অভিযান-এর শ্যুটিং। কাজ করেছেন একটি ডকুমেন্ট্রারি ফিল্মেও। সৌমিত্র বলতেন ‘কাজ ছাড়া আমি আর কিচ্ছু করতে চাই না।’

- বিজ্ঞাপন -