Saturday, June 19, 2021

শেয়ার বাজারের হাল হকিকত

যারা পেশাগত ভাবে ট্রেডারস তাদের জন্য অনেক ব্রোকিং হাউস আছে যারা সর্টটার্ম ট্রেডিং এর জন্য অনেক টোটকা ও টিপস দিয়ে থাকেন।

অবশ্যই পরুনঃ

অমিত গুপ্ত

বর্তমান COVID 19 সময়ে শেয়ার বাজারের হাল হকিকত। নিফটি, সেনসেক্স বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরে ক্রমাগত উর্ধগতিতে বহে চলছে ও অবলীলা ক্রমেই স্টক মার্কেট এর ্টেকনিক্যাল কন্সেপ্ট গুলির সাথে সামজ্ঞাস্য বজায় রেখেই এর এই উর্ধগতি, নিফ্টির গত মে মাসের ৯০০০ লেবেলেরই রেজিস্টেন্স কে ভেঙ্গে জুন মাসে ১০০০০ এর গণ্ডীতে ঢুকে পড়েছে। জুন মাসের Expiry পর্যন্ত ১০০০০ লেভেল টিকে নিফ্টি Maintain করেছে। যদিও দেশের অর্থনীতিকে কোভিড – ১৯ এর রক্তচক্ষু দেখানো অব্যাহত আছে, সঙ্গী হয়েছে সীমন্তের লালফৌজের উত্পাত ও ততসহ জ্বালানি তেলের দামের উর্ধগতি।


কিন্তু শেয়ার বাজার এসব উতপাত গুলিকে হেলায় মাড়িয়ে প্রহসনে পরিণত করেছে। শেয়ার মার্কেটে “বিগ ফান্ড ম্যানেজাররা” তাদের শর্ট কভারেজ এর এক নাগাড়ে গতি বাড়িয়ে সেক্টর / Stock Specific Accumulation বা ক্রয়ের মাত্রা বৃদ্ধি করে বাজারের উর্ধগতিই বজায় রেখে বুল দের হাত শক্ত করেছে। যদিও উল্টো ঘটনার ইঙ্গিত দিচ্ছে ও নিফ্টির শর্ট টার্ম বা সাপ্তাহিক চার্ট এর ডোজি ফরমেশনের মাধ্যমে বেয়াররা তাদের উপস্থিতি জানান দিচ্ছে, বাজারে প্রফিট বুকিং তথা বিক্রিবাটার আয়তন বৃদ্ধিরও ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

আরো পরুনঃ  শেয়ার বাজারের হাল হকিকত 19/07/2020 - অমিত গুপ্ত


সাধারন ইনভেষ্টেরাও এখনো পর্যন্ত এই ক্রয়ের প্রবণতায় সঙ্গে তাল মিলিয়েছেন তবে যতক্ষন পর্যন্ত নিফ্টি দশ হাজারের গোল গোল লেভেল বা আরো নির্দিষ্ট ভাবে বললে নিফ্টি ৯৭৫০ এর ওপর যতক্ষন থাকবে ততক্ষন বাজার বুলরাই কন্ট্রোল করবে। যদিও শেয়ার বাজারের ওঠা নামার দোল চালের বা ভোলাটিলিটির স্বাভাবিক চরিত্র বজায় থাকবে। এখানে “ জো ডর গ্যায়া সমঝো ও মর গ্যায়া “ এই আপ্ত বাক্যটি মাথায় রেখে নার্ভাস না হয়ে কেনা কাটা করতে হবে।

আরো পরুনঃ  "শহরে চাষ" বা "আর্বান কাল্টিভেষন" - ভারতীয় অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার ভাল মানের ঔষধ - অমিত গুপ্ত

নিফ্টির সঙ্গে সুর মিলিয়ে এবং এই সুর তালের ব্যাপারটা কেবল ইনভেষ্টরদের জন্যই প্রযোজ্য। কারন আমি মূলতঃ ইনভষ্টেরদের জন্যই আলোচনা করি। যার মূল উদ্দেশ্য হলো ব্যাঙ্কে জমা টাকার ওপর সুদের হার খুবই কমে যাওয়ার জন্য সুদের ওপর নির্ভর শীল মানুষ দের আয়ও অনেক কমে গেছে বলেই তাদের কিছুটা আর্থিক সুরাহা করে দেওয়ার নিমিত্তেই আমার এই প্রয়াস।

যারা পেশাগত ভাবে ট্রেডার্স তাদের জন্য অনেক ব্রোকিং হাউস আছে যারা শর্ট-টার্ম ট্রেডিং এর জন্য অনেক টোটকা ও টিপস দিয়ে থাকেন। এখানের আলোচনায় গত মে মাসে যে সমস্ত সেক্টর গুলিকে চিহ্নিত করা হয়েছিল। যেমন ফার্মা , জ্বালানি তেল, হট ড্রিক্ঙস (মে মাসে রাডিকো খৈতান ২৯৮ টাকা থেকে বর্তমানে ৩৮৪ হাই করে ৩৭৯ এ দাঁড়িয়ে আপাতত বিশ্রাম নিচ্ছে) ইত্যাদি।

এই সব সেক্টর থেকে নিজ নিজ ক্ষমতা অনুযায়ী Bye On deeps ইনভেষ্ট করবার পরামর্শ ইনভেষ্টরদের জন্য দেওয়া হয়ে ছিল, তারা যদি ঐ সময় তা শুনে কিনে থাকেন তাহলে ইতিমধ্যে এক মাসের ব্যবধানেই তারা প্রায় ৩০% থেকে ৫০% এর ওপর নিয়োজিত মূল ধনের বৃদ্ধি দেখতে পেয়েছেন। কেউ কেউ প্রফিটও বুক করেছেন। উল্লেখ্য এই সব সেক্টরের তেজী ভাব এখনো অব্যাহত আছে ও এর সাথে বর্তমানে কেমিক্যাল ও ফার্টিলাইজার্স ও যুক্ত হয়েছে।

আরো পরুনঃ  ভারত রত্ন - স্বাধীনতা সংগ্রামী পুত্র - প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী প্রয়াত।
Share_Market_Amit_Gupta
শেয়ার বাজারের হাল হকিকত

এটা বাস্তব সত্য যে এতদবস্থায় বাজারে আশা করা যায় যদি বিশ্বের পারিপার্শিক পরিস্থিতি আগামী কয়েক দিনে কিছুটা সংযত থাকে, তাহলে হয়তো শেয়ার বাজারে তার স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে সক্ষম হবে। সেক্ষেত্রে ১০০০০ level Niftyর hoveringযা কি না ১০৬০০ এর মধ্যে Range bound হয়ে Consolidation mode চলতে থাকবে।

আরো পরুনঃ  দক্ষিনেশ্বরে ৩০০ দুঃস্থ মানুষের জন্য খাবারের আয়োজন করল বেলঘড়িয়া দিশা ওয়েলফেয়ার সোসাইটি। রইল ভিডিও

তবে এই Consolidation এ accumulation হবে না break down প্যাটার্ন ফর্ম করবে সেটা নির্ভর করবে নিফটির ততকালিন সময়ের চরিত্র অনুশারে। যদি ৯৭৫০ এর তলায় পর পর দু দিন নিফটি Closing দেয় ও তখনকার নিফ্টির চার্টের চেহারা যেভাবে দাঁড়াবে, সেই অনুযায়ী পরবর্তী স্ট্রাটেজি ঠিক করা যাবে। কাজেই যারা প্রফিটে আছেন তারা খানিকটা প্রফিট বুক করে আবার তলায় কেনার জন্য অপেক্ষা করতে পারেন।

যদিও শেয়ার বাজার ফাটকা বাজির পীঠস্থান বলে Stock specific, High Beta stock গুলিতে যথেষ্ট Volatility দেখা যাবে সেক্ষেত্রে আবহমান কালের চিত্রও কিন্তু একই থাকবে। তাইতো Share market কে পিচ্ছিল বাজার (dicey market) বলা হয়, কিন্তু একটা কথা বলা যেতেই পারে যে ভারতের বর্তমান Sociology Logical – Economic indicators গুলির সাপেক্ষ শেয়ার বাজারের অবস্থা খুব যে সামঞ্জস্য পূর্ণ সেটা কোন ভাবেই বলা যায়না। যেমন low GDP growth, IIP, High CPI(Inflation), Low Spending index., Purchasing power index, High NPA. UNEMPLOYENT Rate etc.

আরো পরুনঃ  সারন্য র বসন্ত উৎসব নজরুল তীর্থে - দেওয়া হলো রবিরশ্মি আবৃতি পুরস্কার - রইল ভিডিও


পরিশেষে একটা কথা বলি আগামী সপ্তাহের প্রথম দিনই হয়তো আমেরিকার ডাউজোন্সের ভাল মাপের পতনের কারনে Nifty সম্ভবত বেশ খানিক টা gap down এ খুলবে। তবে দিনের শেষে নিফ্টির রিকভারি সম্ভবনাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কারন আগেই বলা হয়েছে যে বাজারে এখন খুবই ভোলাটিলিটি থাকবে এবং পতন একমুথী হলে বুঝতে হবে এখনো প্রকাশ্য হয়নি এরূপ কোন খারাপ খবর সামনে আছে।

আরো পরুনঃ  অথ করোনার করুণা ও আমার কথা

তবে বাজার তো চলে এই ওঠা নামার সাপ লুডোর ভিতর দিয়েই তাই ইনভেষ্টেরাও মনে বল রাখুন আমি এই একটা কথাই বলি। শেয়ার বাজারে যারা অল্পেই অধৈর্য হন তাদের স্থান বড়ই সীমিত বরং স্থির মস্তিস্কে, ধৈর্য, জ্ঞান ও বুদ্ধি প্রয়োগের মাধ্যমই হলো শেয়ার বাজারে টিঁকে থাকার মূল মন্ত্র।


Disclaimer : — Myself or my family members do not have any Exposure Interests /D-Mat account.

- Advertisement -

আরো প্রতিবেদন

একটি মতামত জানান

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisement -

সদ্য প্রকাশিতঃ