Saturday, June 19, 2021

শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – 12/7/2020 – অমিত গুপ্ত

অবশ্যই পরুনঃ

বর্তমানের COVID-19 দুর্যোগ সময়ে শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – মোটামুটি ভাবে ঘর বন্দী অবস্থায় ও সার্বিক ভাবে সচেতনতা বৃদ্ধির শুভ প্রচেষ্টায় ও সরকারের আন্তরিক নিরবচ্ছিন্ন চেষ্টায় আমারা সচেতনতার বিষয়ে অনেকেই ইমুউন হয়ে গেছি।তাই আসুন এবার শেয়ার বাজারের দিকে চোখ ফিরিয়ে দেখি ওখান কার কি কর্মকান্ড চলছে ।

প্রথমেই বলে রাখি এই লেখনীর মূল উদ্দেশ্য ব্যাঙ্কের সেভিংস এর ইন্টারেষ্ট রেট কমে যাওয়ার কারনে মিডটার্ম ইনভেষ্টর দের সাহায্য করা যাতে তাদের পুজি সুরক্ষিত রেখে মূল ধনের পরিমান বৃদ্ধি করা যায়। গত সপ্তাহে আমাকে কেও কেও প্রশ্ন করেছেন আমি কেন খেলাধুলা না করে শেয়ার বাজারের মাঠে বসে শুধু খেলা  দেখতে বলেছি তাদের সবাইকে বলেছিলাম আমার কথার ওপর ভরসা না থাকলে স্বছন্দেই নিজের মতন চলতে পারেন তবে এর কারন জানতে হলে সপ্তাহের শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

এবার কারনটা ব্যাখ্যা করি – দেখুন গত সপ্তাহে নিফ্টি 10607 তে নেগেটিভ ব্রেড্থে বন্ধ হয়েছিল আর এই সপ্তাহে নিফ্টি close করেছে 10768। অর্থাত্ মাত্র 150 পয়েন্ট ওপরে তার মধ্যে গত সপ্তাহের অগ্রিম ভাবে বলা হয়ে ছিল সরকারের তরফ থেকে বাজারে নতুন Liquidity Infuse এর খবরের পরিপ্রেক্ষিতে তার আগের শুক্রবার রাত্রে ডাও জন্সের বিরাট উত্থানের জন্য সোমবার নিফ্টির gap up opening হবে ও কার্য ক্ষেত্রে নিফ্টি 10726 open হয়ে 10752 তে close করেছিল কিন্তু সারা সপ্তাহের খেলাধুলায়  নিফ্টি তার  রেজিস্টন্স জোন 10900 টপকাতে পারেনি।

সব জারি জুরিই 10800 এর লেভেল শেষ হয়ে গিয়ে ছিল কাজেই বাজারের উর্ধগতির নিরিখে স্টকগুলি সোমবারের শুরুতেই মোটামুটি উচ্চতম মূল্যে তাদের খেলা শুরু করেছিল এবং সেখানে দাঁড়িয়ে কিনতে হলে পুঁজির block করা ছাড়া আর বিশেষ কিছু লাভ হতো বলে মনে হচ্ছে না।

আরো পরুনঃ  অন্তিম সৎকার না করেই মণীষা বাল্মিকীর দেহ জ্বালিয়ে দিল যোগী সরকার।

তাছাড়াও আরো একটা জিনিস লক্ষণীয় যে বাজারের উর্ধগতি  তখনই বজায় থাকে যখন বাজারে ডিমান্ড বেশি থাকে অথচ সাপ্লাই কম থাকে। কিন্তু,বিগত সপ্তাহে আরো একটা  লক্ষণীয় বিষয় ছিল বাজারে ডিমান্ডের সাথে সাখে supply chain ও খুব Proactive ছিল। তার মূল কারন হলো মে – জুন মাসে fii বা Foreign Institutional Investors বাজারে তাদের মোট ক্রয়ের পরিমান বৃদ্ধি করে বুল দের হাত শক্ত করেছিল  কিন্তু জুলাই মাসে এযাবত্ উল্টো খেলা দেখা যাচ্ছে ও এখন পর্যন্ত fii দের কেনা অপেক্ষা বেচার পরিমান বেশি তাই বাজারে Supply side বৃদ্ধি পেয়ে বেয়র দের হাতই শক্ত হচ্ছ সেই কারনেই বাজারে মাঝারি কারেকশন সামনেই আসছে বলে মনে হচ্ছে, এই সব কারনে জন্যই পুঁজি না ফাঁসিয়ে হাতে পুঁজি ধরে রাখার জন্যই মাঠের বাইরে বসে খেলা দেখতে ও এই পরিস্থিতিকে কিভাবে মোকাবিলা করবেন তা ঠিক করার জন্যই এই বন বাসের সুপারিশ ছিল।

আরো পরুনঃ  শেয়ার বাজারের হাল হকিকত - 5/7/2020 - অমিত গুপ্ত

তাহলে  আমরা কি করবো ? প্রথমত দেখবো বাজার উপরের দিকে যাচ্ছে কিনা , যদি যায় তাহলে 10900 এর ওপর পর পর দুতিন দিন sustain করে কিনা সেক্ষেত্রে কেনা কাটা নতুন করে শুরু করবো যেখানে Stop loss থাকবে10600,10450,10100,ও 10000। এই ভাবে বাজার যদি 10900 ওপর তার গতি পথ ঠিক করে নিয়ে চলে তবে তার চলাটা বেশ ভালই উর্ধগতিতে হবে ও বড় মাপের বৃদ্ধি হবে তখন ব্যাঙ্কিং স্টক গুলির কেনার  দিকে নজর দেওয়া যাবে কারন এদের এখনো পর্যন্ত অনেকেই Over sold অবস্থায় আছে দেশের আর্থিক পরিস্থিতি আরো একটু ভাল হলেই এরা পূর্নগতিতে ছুটে উপরের দিকের gap গুলিকে cover করবে তাই এদের Higher  side  movement ও ভাল হবে।

এই সব দিক দিয়ে সার্বিক ভাবে ভাবলেই বোঝা যাবে আগের বারের শেয়ার বাজারের হাল হকি কতে বিশ্লেষণ সঠিক মাত্রায় ছিল যা কিনা Investors দের সঠিক পথেই দেখিয়েছে ।অর্থাত্ এক কথায় প্রথমত বাজার  বুল দেরই হাতে দ্বিতীয়ত নিফ্টি আরো দুটো Support zone তৈরি করেছে। প্রথমটি 10600 ও দ্বিতীয়টি 10450 এর কাছা কাছি। এখন আসুন আমরা আগামী সপ্তাহের Strategy র কথা বলতে গেলে প্রথমেই উল্লেখ্য যে যদিও নিফ্টি ১০৬০০ ওর ওপর higher level closing করেছে তথাপি দিনের শেষে দেখা গেলো মার্কেটব্রেথ negative স্টকের এ্যাডভ্যান্স ডিক্লাইন্ড রেশিও ভগ্নাংশ / ১ এর কম হয়েছে অর্থাত্ আগের দিনের মানে বৃহস্পবতিবার বাজার বন্ধের সময় যে দাম ছিল শুক্রবার বাজার বন্ধের সময় তার থেকে কম দামে বন্ধ হয়েছে এরকম Stock এর সংখ্যা বেশী Stock বিক্রি হয়েছে যদিও টেকনিক্যাল চার্ট অনুযায়ী নিফ্টির Over bought এর দোর গোরায় এই রকম ফরমেশন দেখাচ্ছে (RSI এর মান 69.8 – 10/07/2020) কাজেই বাজারে করেকশন আসন্ন এটা বলা যায় যদিনা মাঝ পথে বিশ্ব বাজারে কোন বড় মাপের অঘটন না ঘটে বা বুলরা নতুন অর্থ বাজারে আনার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ করেতাছাড়া শেয়ার বাজারের সেন্টিমেন্ট হামেশাই পরিবর্তিত হয় ও সেসব বিষয়টা কতটা গভীর সেটা বোঝাগেলেই রহস্য ভেদ করতে সুবিধা হয় কিন্তু এটা বাস্তবিকই কঠিনতম কাজ।

আরো পরুনঃ  শেয়ার বাজারের কেনাকাটা
আরো পরুনঃ  শেয়ার বাজারের হাল হকিকত - 5/7/2020 - অমিত গুপ্ত

তাহলে Investors রা কি করবে ? এখন যদি উল্টো হয় অর্থাত্ নিফ্টির কারেকশন শুরু হয় তখন Stop loss গুলির দিকে নজর রেখে প্রয়োজন অনুযায়ী প্রফিট বুক করতে হবে বা Digest the loss  before witnessing many more loss in coming days।তবে যারা Systematic investment করেন অর্খাত প্রতি মাসে বা সপ্তাহে একটা নির্দিষ্ট পরিমান টাকা বাজারে নিবেশিত করেন তাদের এই প্রচেষ্টা দীর্ঘকালিন ভিত্তিতে হয় সেক্ষেত্রে বাজারের ওঠা নামার বিষয়টি তারা consider করেন না তথাপি তাদের শেষ পরিশেষ গড় মূল্য অনেকটা ই লাভ জনক হয় যদি তারা নিবেশের জন্য সঠিক স্টক চিহ্নিত করে থাকেন।

Investors দের Stop loss গুলি আরো একবার মনে করিয়ে দিই ১০৬০০, ১০৪৫০, ১০১০০, ১০০০০, ৯৭৫০। আশাকরা যায় বিশ্বের পারিপার্শিক পরিস্থিতি আগামী কয়েক দিনে কিছুটা সংযত হলে হয়তো শেয়ার বাজার তার নিন্মগতি রোধে সক্ষম হবে। সেক্ষেত্রে নিফ্টির হয়তে চপি ট্রেন্ডে রেজ্ঞবাউন্ড হয়ে কিছু দিন চলতে থাকবে যদিও শেয়ার বাজার ফাটকা বাজির পীঠস্থান বলে স্টক স্পেসিফিক / হাই বিটা স্টক গুলিতে যথেষ্ট Volatility থাকবে।

আরো পরুনঃ  শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – 16/08/2020 - অমিত গুপ্ত

তাই বলছি ইনভেষ্টেরাও BYE ON DEEPS করতেই পারেন। তবে কেনাকাটা করবেন কিনা তা নিজের পকেটের দিকে তাকিয়ে নিজেরাই ঠিক করবেন ও সে সিদ্ধান্ত আপনি নিজেই নেবেন আমি শুধু মাত্র আমার ব্যক্তিগত মতামত জানিয়েছি এবং তার কারন আগের লেখায় যা লিখেছি সেটাই অর্থাত্ কোভিড ১৯ চলা কালীন অবস্থায় দেশের গুরুত্বপূর্ণ আর্থ-সামাজিক ইন্ডিকেটর যথা জিডিপি , আই আই পি , সিপিআই, স্পেন্ডিং ও মার্কেট কনফিডেন্স ইনডেক্স , এজেন্সিগুলি কতূক নির্ধারিত রেটিং এর মান ইত্যাদি কোনটিই ভাল অবস্থায় নেই।

Share_Market_Amit_Gupta

পরিশেষে Investors দের Stock বাছার জন্য কিছু টিপস দিচ্ছি যেমন প্রথম কোম্পানি র balance sheet ভাল করে study করতে হবে .দেখতে হবে নীট প্রফিট রেশিও, ও সেখান থেকে EPS বা Earnings per share হিসাব করে যে কোম্পানির EPS যত বেশি সেই সব কোম্পানিতে invest করাই ভাল বলা হয়।আরো একটি বিষয়ে সতর্কতা আবার repeat করা আবশ্যক মনে করি তা হলো কোম্পানির মুলধন সাপেক্ষে debt বা বাজারে ধারের পরিমান যদি বেশী হয় সেক্ষেত্রে ইনভেষ্টরদের এই সব স্টককে এড়িয়ে যাওয়া উচিত হবে কারন এ ই সব স্টক হটাত করে ই একদিন গনেশ উল্টোয় যদিও এক্ষেত্রে তার প্রাইস মুভমেন্ট চার্ট যতই আকর্ষণীয় হোক না কেন তবে ডেলি ট্রেডারস যারা সচরাচর স্টক ডেলিভারি নেন না তারা এই ধরনের স্টক নিয়েই খেলাধুলা করেন বেশি।

আরো পরুনঃ  শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – 26/07/2020 – অমিত গুপ্ত

কারন এর থেকেই তারা চটজলদি লাভের আশা করেন যদিও এটা খুবই পিছল পথ ও লোকসানের সম্ভাবনাও যথেষ্ট বেশী থাকে। এই রকম স্টকের বেশ কিছু স্টকের নাম শেয়ার বাজারের অলিন্দে ঘোরা ফেরা করে যেমন হিমাচল ফিউচারাষ্টীক , সত্যম, ইউনিটেক, জেপি এসোসিয়েটস সম্প্রতি YES BANK, PUNJAB NATIONAL BANK , DHFL ইত্যাদি স্টক গুলির নামও এদের সঙ্গে সংযোযিত হয়েছে।

ঘোষনা:- আমার বা আমার পরিবার শেয়ার বাজারের সাথে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত বা স্বার্থ নেই।

- Advertisement -

আরো প্রতিবেদন

একটি মতামত জানান

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisement -

সদ্য প্রকাশিতঃ