শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – 12/09/2020

অবশ্যই পয়সার মুখ দেখবেন এবং এই সব সেক্টরে থেকে নিজ নিজ ক্ষমতা অনুযায়ী Bye On deeps ইনভেষ্ট করবার পরামর্শ ইনভেষ্টরদের জন্য আগের মতই দেওয়া হচ্ছে উল্লেখ্য এই সব সেক্টরের তেজী ভাব এখন আরো বূদ্ধি পাবার সম্ভবনা অব্যাহত আছে ও এর সাথে বর্তমানে কেমিক্যাল ও ফার্টিলাইজার্স ও যুক্ত হয়েছে।

0
363
- বিজ্ঞাপন -

Nifty ,Sensex বিগত সপ্তাহ ক্রমাগত উঠানামা করছে কিন্তু ১১৫০০ উপরে টিঁকে থাকতে পারছে না বড় ধরনের রিট্রেসমেন্ট হয়ে নীচে নেমে ১১২০০কে SUPPORT হিসাবে ব্যবহার করছে আমি এই বিষয়টি থেকে এখনই নিফ্টির CORRECTION শুরু হয়ে গেছে এটা এখনই ভাবার মতন যথেষ্ট EVIDENSE BASE PROOF পাচ্ছিনা এবং আশা রাখি বাজারের উপরের দিকে যাবার চেষ্টা থাকবে যতই জিডিপির পতন নেগেটিভ ডিরেকশন নিক না কেন এবং যখন অবশেষে ১১৫০০ গণ্ডী অতিক্রম করবে ও সেক্ষেত্রে নিফ্টির ১১৫০০ কে Stop loss করে নতুন করে কেনা কাটা করা যেতে পারে কারন এর পর নিফ্টির অভিমুখ ১২০০০ তবে তার আগে ১১৭৫০এর একটা Resistance ও ১১৯০০ আর একটা লেভেল পার করতে হবে।

- বিজ্ঞাপন -

আরো পড়ুনঃ শেয়ার বাজারের হাল হকি কত – 30/08/2020

যদিও মাঝে মাাঝে নিফ্টিতে Retracement হবে তবে সেটাতে ক্ষতি নেই সেটা ইনভেস্টর দের নির্দিষ্ট লেভেলে শেয়ার কেনার সুযোগ করে দেবে কারন নিফ্টির Uptrend এখনো intact আছে। যাইহোক আগের লেখার সূত্র ধরে বলি যে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রীর খুব ভাল perform করছে ও এর উত্থান চোখে পড়ার মতন হয়ে বর্তমানে ২৩০০ তে আছে যারা ২০৮০ র কাছাকাছি Stockটি কিনেছিলেন তারা ভালা লাভের মুখ দেখছেন।

আরো পড়ুনঃ শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – 16/08/2020

তাছাড়া হিন্দুস্থান লিভার ২১৩০ কাছাকাছি কিনেছিলেন সেক্ষেত্রে তারা আশা করি একাধীক বার PROFIT BOOK করার সুযোগ পেয়েছেন কারন স্টকটি ২১৮০ পর্যন্ত মুভ করে আবার নীচে এসেছে যদিও স্টকটি ২২০০ র গন্ডী অতিক্রম করতে পারেনি। আর STATE BANK ২২০ ও JINDAL STEEL ২১০ STOP LOSS কেটে গিয়ে অনেক নীচে চলে এসেছিল Stop loss এই ভাবেই আমাদের পোর্টফোলিওকে অল্প ক্ষতির মাধ্যমে বড় ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে.এগুলির সম্ভবনা সম্পর্কে আগের লেখায় বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

আরো পরুনঃ  শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – 12/7/2020 – অমিত গুপ্ত

আরো পড়ুনঃ শেয়ার বাজারের হাল হকিকত – 26/07/2020

এখন প্রশ্ন সাধারন ইনভেষ্টেরা কি করবেন ?
১. হাতে ক্যাশটাকা নিয়ে বসে বাজারের খেলা দেখবেন কারন বাজারের ভোলাটিলিটিতে রোজগার করা খুব দক্ষ না হলে মুসকিল.তাই দেখুন বাজারে করেকশনের দিকে যাচ্ছে কি না অথবা বাজার ১১৫০০উপর বহাল তবিয়তে অবস্থান করছে সেই মতন বাজারে পজিশন নেবেন।

আরো পড়ুনঃ শেয়ার বাজারের হাল হকিকত 19/07/2020

২. বাজারের ভোলাটিলিটিকে কাজে লাগিয়ে দক্ষ ভাবে রোজগার করবেন কিন্তু একটা কথা মাথায় রাখবেন যে কৌশল হবে BYE ON DEEP & SELL ON RISE. এইভাবে বাজারের প্রবণতায় সঙ্গে তাল মিলাবেন তবে যতক্ষন পর্যন্ত নিফ্টি এগারে হাজার দুশো ওপরের লেভেল থাকবে ততক্ষন বাজার বুলরাই কন্ট্রোল করবে. যদিও শেয়ার বাজারের উঠা নামা দোল চালের বা ভোলাটিলিটির স্বাভাবিক চরিত্র বজায় থাকবে ও Nervous না হয়ে STOP LOSS দিয়ে নির্দিষ্ট লেভেলে কেনা কাটা করতে হবে ও একই ভাবে নির্দিষ্ট লেভেলে বেচতে হবে।

আরো পড়ুনঃ মূল্য বৃদ্ধি – কঞ্জিউমার প্রাইস ইন্ডেক্স (সি পি আই) আসলে কি? সি পি আই এর নেপথ্যে

আরো পরুনঃ  Yashika Fashion Party Wear Sea Green Designer Georgette Saree With Designer Printed Blouse

নিফ্টির অবনমনের সঙ্গে সুর মিলিয়ে তবে এই সুর তালের ব্যাপারটা ইনভেষ্টরদের জন্যই প্রযোজ্য কারন আমি মূলতঃ ইনভষ্টেরদের জন্যই আলোচনা করি ট্রেডারস দের জন্য অনেক ব্রোকিং হাউস আছে যারা সর্টটার্ম ট্রেডিং এর জন্য অনেক টোটকা ও টিপস দিয়ে থাকেন।

আরো পড়ুনঃ কোভিড- ১৯ ও দীর্ঘ লকডাউনে ভারতীয় অর্থনীতি ও জিডিপির ভূমিকা

এখানে আলোচনায় যে সমস্ত Sectors গুলিকে চিহ্নিত করা হয়েছিল যেমন ফার্মা, জ্বালানি তেল, Retail Trade ,ইলেকট্রিকব্যটারী ইত্যাদি তবে যাই করুন টেকনিক্যাল লেভেল ধরেই বাজারে Entry ও Exists করুন তাহলে অবশ্যই পয়সার মুখ দেখবেন এবং এই সব সেক্টরে থেকে নিজ নিজ ক্ষমতা অনুযায়ী Bye On deeps ইনভেষ্ট করবার পরামর্শ ইনভেষ্টরদের জন্য আগের মতই দেওয়া হচ্ছে উল্লেখ্য এই সব সেক্টরের তেজী ভাব এখন আরো বূদ্ধি পাবার সম্ভবনা অব্যাহত আছে ও এর সাথে বর্তমানে কেমিক্যাল ও ফার্টিলাইজার্স ও যুক্ত হয়েছে।

আরো পড়ুনঃ মমতা ব্যানার্জী র পর কে হবেন বাংলার মুখ? কে কোন স্থানে অবস্থান করছেন?

যাই হোক জিন্দল স্টিলকে ১৯৫ স্টপলস ধরে ২০০টাকায় কেনা যেতে পারে সেক্ষত্রে বাজার চললে ২২০ পর্যন্ত টারগেট হবে ..রিলায়েন্স ইটিএফ কে ২২৫ Stop loss ধরে কেনা যেতে পারে target 2৪0 তারপর ২৫০। আরো একটা স্টককে দেখতে পারেন কল্পতরু পাওয়ার যার ফান্ডামেন্টাল গল্পটি ভাল প্রোডাক্ট ডাইভার সিফিকেশনের ব্যাপারটা আছে যাই হোক ১৪৫কে স্টপলস ধরে কাছাকাছি দামে কিনলে এর টারগেট ১৫৪ ও ১৬২।

আরো পরুনঃ  🇮🇳 🇮🇳 🇮🇳 🇮🇳 🇮🇳 🇮🇳

আরো পড়ুনঃ বঙ্গসন্তান এয়ার মার্শাল ইন্দ্রলাল রায় ছিলেন প্রথম যুদ্ধবিমান চালক 

আবার বলছি যে এটা বাস্তব সত্য যে এমতবস্থায় বাজারে যারা প্রফিটে আছেন তারা খানিকটা প্রফিট বুককরে আবার তলায় কেনার জন্যঅপেক্ষা করতে পারেন 1যদিও শেয়ার বাজার ফাটকা বাজির পীঠস্থান বলে Stock specific, High Beta stock গুলিতে যথেষ্ট Volatility দেখা যাবে সেক্ষেত্রে আবহমান কালের চিত্র একই থাকবে তাইতো Share market কে dicey market বলা হয়।

আরো পড়ুনঃ

কিন্ত একটা কথা বলা যেতেই পারে যে ভারতের বর্তমান Socio-Economic indicators গুলির সাপেক্ষ শেয়ার বাজারের অবস্থা আদৌও সামঞ্জস্য পূর্ণ কোন ভাবেই বলা যায়না। যেমন NEGATIVE GDP growth, IIP, High CPI(Inflation). Low Spending index. Purchasing power index, High NPA. UNEMPLOYENT Rate etc.

আরো পড়ুনঃ এক্সরের রেট ২৫০/- হলেও মোট খরচ ৭৫০/- ব্যবহৃত পিপিই কিটের নামে…

তবে বাজার তো চলে এই উঠা নামার সাপ লুডোর ভিতর দিয়েই তাই ইনভেষ্টেরাও মনে বল রাখুন আমি একটা কথাই বলি শেয়ার বাজারে যারা অল্পেই অধৈর্য হন তাদের স্থান বড়ই সীমিত বরং স্থির মস্তিস্কে, ধৈর্য, জ্ঞান ও বুদ্ধি প্রয়োগের মাধ্যমই হলো শেয়ার বাজারে টিঁকে থাকার মূল মন্ত্র।।

আরো পড়ুনঃ ক্ষমা চাইতে বাধ্য হলেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী – ঐক্য বাংলা’র…

Disclaimer – Myself or my family members do not have any Exposure Interests / D -Mat account

- বিজ্ঞাপন -