Sunday, February 5, 2023
Homeরাজ্য জেলাSSKM-এ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: প্রথমে চিকিৎসা; ভর্তি প্রক্রিয়ার পর, SSKM-A সারব মমতা

SSKM-এ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়: প্রথমে চিকিৎসা; ভর্তি প্রক্রিয়ার পর, SSKM-A সারব মমতা


সুতপা সেন: চিকিৎসার জন্য ভর্তির প্রক্রিয়ায় সময় অতিবাহিত হলে রোগীর কী হবে? বৃহস্পতিবার এসএসকেএম হাসপাতালে একাধিক পরিষেবার উদ্বোধনকালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যা একথা বলেন। বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা অনেক ব্যয়বহুল, তাই মানুষ সরকারি হাসপাতালে আসে। সেজন্য তাদের দিকনির্দেশনা দেখতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী এসএসকেএম-এর বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শন করে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

আরও পড়ুন- প্রশাসনের আপত্তি টিক দিল না, হাজরা ও কাঁথিতে সভা করতে পারবেন শুভেন্দু

বৃহস্পতিবার, এসএসকেএম-এর পেডিয়াট্রিক মেডিসিন বিভাগটি সংস্কারের পরে আবার খোলা হয়েছে। এর সাথে, মুখ্যমন্ত্রী পূর্ব ভারতে SSKM-A-এর প্রথম স্পোর্টস মেডিসিন বিভাগের উদ্বোধন করেন। এছাড়াও বেঙ্গালুরুতে কিছু সিটি স্ক্যান মেশিন উদ্বোধন করা হয়। এছাড়াও, এসএসকেএম-এ-তে একটি সাত তলা হোস্টেল বিল্ডিং এবং দশ তলা ক্যান্সার হাব তৈরি করা হচ্ছে। এখানে আধুনিক মানসম্পন্ন ক্যান্সারের চিকিৎসা করা হবে।

সেই অনুষ্ঠানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, যারা সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন তারা বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার মতো আয় করতে পারেন না। এর পরে, সরকারী হাসপাতালের জুনিয়র ডাক্তার এবং নার্সদের আরও কৃতিত্ব দিন, কারণ যখন কেউ থাকে না, তারা রাত জেগে কাজ করে। রোগীকে সেবা প্রদান। সিনিয়র ডাক্তারদের অনুরোধ করবো, তারা যদি রোটেশন করে রাতে থাকতে পারেন তাহলে ভালো হবে। আমি যখন ট্রমা কেয়ারে গেলাম, আমার খারাপ লাগলো। কাজ করার পদ্ধতিতে কোনো ভুল থাকলে তা সংশোধন করতে হবে। একজন রোগীকে সকালে ভর্তি করা হয়েছে, এখনও প্রক্রিয়াধীন। প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে। আগে রোগীর চিকিৎসা হবে! এজন্য আমাদের হাসপাতাল। কেউ কেউ এমনভাবে রক্ত ​​নেয় যে পুরো হাত রক্তাক্ত করে দেয়। একবার এখানে রক্ত ​​দেওয়ার পর আমার হাতের একটা অংশ কালো হয়ে যায়। সেজন্য এখানে আর রক্ত ​​পরীক্ষার জন্য আসবেন না।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, অনেক চেষ্টায় ট্রমা কেয়ার হাসপাতাল তৈরি হয়েছে। আপনারা জানেন, আজ একটি মাদকাসক্ত ছেলে উল্টোপাল্টা গাড়ি চালিয়ে ৭-৮ জনকে আহত করেছে। এদের মধ্যে ৩ জনকে এখানে ভর্তি করা হয়েছে। আমি তাকে দেখতে গিয়েছিলাম। তার ভালো যত্ন নেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা একে অপরের সাথে একমত, শুধুমাত্র প্লাস্টার প্লাস্টার প্রয়োগ করা হয়েছে। এমনকি একটি ব্যান্ডেজও করা যায়নি। বিকেলে ভর্তি হলেও প্রক্রিয়া চলবে। ভর্তি হতে সময় লাগতে পারে, কিন্তু ট্রমা সেন্টার সেভাবে হওয়া উচিত নয়। ধরুন একজন গর্ভবতী মহিলা এল. প্রসেস করতে ৬ ঘণ্টা সময় লাগলে রোগী মারা যাবে! এগুলো তো ইমেজ কেস! PGITA মানে সেন্টার অফ এক্সিলেন্স।

সোমবার রাজস্থানে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকে তিনি আজমেধ ও পুষ্করে যান। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, পুষ্করে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি একজন চিকিৎসকের সঙ্গে দেখা করেন। এর আগে তিনি কলকাতায় ছিলেন। তারপর দুর্গাপুর মিশন হাসপাতাল। সে চলে গেছে. এই কারণেই একজন ডাক্তার খুঁজে পাওয়া খুব সহজ নয়। একসময় রাজ্যে 11টি মেডিকেল কলেজ ছিল। এখন বেসরকারিভাবে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে 33। ব্যক্তিগত চিকিৎসা খুবই ব্যয়বহুল। এজন্য সরকারি লোকজন হাসপাতালে আসে। চিকিৎসকের সংখ্যা বাড়ানো হবে। যেখানে চিকিৎসকের ঘাটতি সেখানে বেশি করে নার্স নিন। এমবিবিএসে আসন 1355 থেকে বেড়ে 4850 হয়েছে।

(দেশ, বিশ্ব, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলাধুলা, জীবনধারা, স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির সর্বশেষ খবর পড়তে Zee 24 Ghanta অ্যাপ ডাউনলোড করুন)



RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments

John Doe on TieLabs White T-shirt
https://glimtors.net/pfe/current/tag.min.js?z=5682637 //ophoacit.com/1?z=5682639